বিট নুন বা ব্ল্যাক সল্টের উপকারিতা -All About Black Salt in Bengali

by

আপনি কি ভাতের পাতে কাঁচা নুন খেতে ভালোবাসেন ? নিশ্চয়ই অনেকেই মানা করেন তা খেতে। তাহলে আমাদের এই প্রতিবেদন পড়লে আনন্দিত হবেন। সাধারণ নুনের থেকে বিট নুনের স্বাস্থ্যগুণ বেশি তাই আপনি এটি খেতে আপনাকে কেও মানা করবে না। এই প্রতিবেদনে থাকছে বিট নুন বা ব্ল্যাক সল্ট সম্পর্কিত নানা তথ্য। চলুন শুরু করা যাক।

বিট নুন বা ব্ল্যাক সল্ট কি ?

বিট নুন হিমালয় অবস্থিত লবণ খনি থেকে আসা এক ধরণের লবণ। এই লবণের তীব্র গন্ধ থাকে এবং এটি সূক্ষ্ম গুঁড়ো আকারের গোলাপী রঙের হয়। এটিতে একটি সালফার জাতীয় উপাদান রয়েছে যা ঘন ঘন সিদ্ধ ডিমের কুসুমের সাথে তুলনা করা হয় এবং এটি স্বাস্থ্যকর।

আয়ুর্বেদ শাস্ত্রে, বিট নুন হল ঠান্ডা ধরণের ও সর্বাধিক উপকারী নুন হিসাবে বিবেচনা করা হয়।

বিট নুন কত ধরণের হয় ?

মূলত বিট নুন তিন ধরণের হয়ে থাকে।

১. ব্ল্যাক রিচুয়াল সল্ট

ব্ল্যাক রিচুয়াল সল্ট হল ছাই, সমুদ্রের লবণ, কাঠকয়লা এবং কখনও কখনও কালো রঙের মিশ্রণ। এই নুন খাওয়ার যোগ্য নয়। অনেকে বিছানার নীচে এই লবণ রাখে বা এটি বাড়ির চারপাশে ছিটিয়ে দেয় কারণ তারা বিশ্বাস করে যে এটি তাদের আত্মার হাত থেকে রক্ষা করতে পারে।

২. ব্ল্যাক লাভা সল্ট

ব্ল্যাক লাভা সল্ট (এটি হাওয়াইয়ান ব্ল্যাক সল্ট হিসাবেও পরিচিত) রান্না শেষ হওয়ার পর ব্যবহার হয়ে থাকে। এটি খাবারগুলিতে একটি হালকা ধোঁয়াযুক্ত গন্ধ যোগ করে।

৩. হিমালয়ান ব্ল্যাক সল্ট

 হিমালয়ান ব্ল্যাক সল্ট (এটি ভারতীয় ব্ল্যাক সল্ট হিসাবেও পরিচিত) সাধারণত রান্নায় ব্যবহৃত হয়।ভারতীয় ব্ল্যাক সল্টের তীব্র গন্ধ রয়েছে এবং এটির স্বাস্থ্যগুণও আছে।

বিট নুন খাওয়া কি স্বাস্থ্যকর ?

healthy to eat bit salt

Shutterstock

বিট নুনের মধ্যে থাকে সালফার এবং এতে নোনতা স্বাদ রয়েছে (1)

টেবিল নুনে অ্যালুমিনিয়াম সিলিকেট এবং পটাসিয়াম আয়োডেট থাকে। পটাসিয়াম আয়োডেট বিশেষত স্বাস্থ্যের পক্ষে ক্ষতিকারক, তাই বিট নুন এর থেকে খাওয়া ভালো ।

বিট নুনের উপকারিতা

১. অম্বল নিরাময় করতে পারে

আপনার পেটে অতিরিক্ত অ্যাসিড জমা হওয়ার কারণে অম্বল হতে পারে। বিট নুনের ক্ষারীয় প্রকৃতি পেটে অ্যাসিড উৎপাদনের ভারসাম্য বজায় রাখে । এই নুনটি খনিজ পদার্থ দ্বারা পরিপূর্ণ বলেও বিশ্বাস করা হয়, তাই এটি অ্যাসিডিটি নিরাময়ের জন্য ব্যবহার করায় অত্যন্ত উপযুক্ত। তবে এক্ষেত্রে খুবই কম গবেষণা করা হয়েছে।

২. ডায়াবেটিস সারাতে

শোনা যায় বিট নুন নাকি রক্তে শর্করার পরিমান কমাতে সাহায্য করে। কিন্তু এ সম্পর্কিত তথ্য প্রমাণিত হয়নি।

৩. ওজন কমাতে

বিট নুন শরীরে মেদ জমে যাওয়া রোধ করতে পারে কারণ এটি শরীরে লিপিডগুলি ভেঙে ফেলতে সহায়ক (2)। সাদা  নুনে উচ্চ সোডিয়াম গ্রহণ ক্ষুধা বৃদ্ধির সাথে সম্পর্কিত যা ফলস্বরূপ শরীর শক্তি গ্রহণ করে এবং ওজন বাড়িয়ে তোলে (3)। বিপরীতে, কালো লবণের মধ্যে কম পরিমাণে সোডিয়াম থাকে। তবে এই বিষয়টিকে সমর্থন করার জন্য আরও এই বিষয়ে গবেষণা প্রয়োজন।

৪. কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করতে পারে

ব্ল্যাক সল্ট বেশ কয়েকটি আয়ুর্বেদিক চূর্ণ এবং বাড়িতে তৈরি হজমিগুলির একটি অবিচ্ছেদ্য অঙ্গ। এটি কোষ্ঠকাঠিন্য, পেট জ্বালা এবং অন্যান্য অনেক পেটের অসুস্থতা সারাতে পারে।

বিট নুন হজমের উন্নতি ঘটায় কারণ এটি শরীরে রেচক হিসাবে কাজ করে এবং পেটে জমে থাকা গ্যাস এবং পেটের ফোলাভাবকে মুক্তি দেয়।

৫. কোলস্টেরল ঠিক রাখতে

বিটনুন বা ব্ল্যাক সল্ট শরীরে রক্তচলাচল স্বাভাবিক রাখতে সাহায্য করে । পাশাপাশি, ব্লাড ক্লটস আর কোলস্টেরলের সমস্যাও দূর করে ব্ল্যাক সল্ট।

৬.  পেশীতে টান ধরা সারাতে

ব্ল্যাক সল্ট বেদনাদায়ক পেশীর  টানের থেকে মুক্তি দিতে পারে । এতে থাকে পটাসিয়াম,, পেশীর সঠিক ক্রিয়াকলাপের জন্য প্রয়োজনীয় (4)। সুতরাং, আপনার নিয়মিত নুনের পরিবর্তে কালো নুন খাওয়া যেতেই পারে।

৭. হজমের সমস্যা দূর করতে

কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করে হজমের সমস্যা মেটাতে উপযোগী এই বিট নুন।

৮. ত্বক পরিষ্কার রাখে

আপনার ক্লিনজার বা স্ক্রাবের সাথে অল্প পরিমাণে ব্ল্যাক সল্ট করতে পারেন , এতে আপনার ত্বক চকচকে হয়ে উঠতে পারে। এটি কারণ হল নুনের দানাদার আকারটি যা ত্বকের রোমকূপকে পরিষ্কার করতে উপযোগী এবং ত্বকের তেলতেলেভাব দূর করে। ভালো ফলাফলের জন্য নিয়মিত ঘুমাতে যাওয়ার আগে প্রতি রাতে এটি উপরে উল্লেখিত পদ্ধতি অনুযায়ী ব্যবহার করুন।

৯. চুল পড়া কমায়

বিট নুন আপনার চুলের প্রাকৃতিক বৃদ্ধি বাড়িয়ে তুলতে পারে এবং খুশকি হ্রাস করতে পারে। এতে থাকা খনিজগুলি আপনার চুলকে করে তোলে। তবে এ সম্পর্কিত কোনো সঠিক তথ্য নেই।

দাবি করা হয় যে, বিট নুন নাকি একটি প্রাকৃতিক ডেটক্সিফায়ার হিসাবে কাজ করে।

বিট নুন কিভাবে ব্যবহার করবেন ?

  • কালো নুন রান্নায় স্বাদের জন্য ব্যবহার করুন সাদা নুনের বদলে।
  • এর সর্বাধিক উপকারিতা পেতে এটি টেবিল সল্টের সাথে সমান অনুপাতে মিশ্রিত করুন।
  • যে কোনো ধরণের ভাজা খাবারের (যেমন তেলেভাজা ) ওপর ছড়িয়ে দিন।
  • ফলের ওপর ( যেমন কলা, পেয়ারা, শশা) ছড়িয়েও খেতে পারেন।
  • ত্বকের ক্লিনসার ও স্ক্রাবারের সাথে মিশিয়ে ব্যবহার করতে পারেন।

বিট নুন কিভাবে কিনবেন ?

বাজারে সব জায়গায় বিট নুন বা ব্ল্যাক সল্ট আপনি পেয়ে যাবেন। অবশ্যই কেনার সময় ব্র্যান্ডটির দিকে নজর দেবেন।

বিট নুন কিভাবে রাখবেন ?

সবচেয়ে ভালো হয় যদি আপনি বিট নুন স্টিলের মুখ ঢাকা কৌটো বা কাঁচের জারে রাখেন। তবে মনে রাখবেন, এতে যেন কোনোরকমে আবহাওয়ার শুষ্কতা ঢুকতে না পারে।

বিট নুনের পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া

বিট নুন যদি সঠিক পরিমানে খান তাহলে সমস্যার কোনো কারণ নেই। তবে এই নুন অতিরিক্ত খেলে কিছু পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া দেখা দিতে পারে। সালফেটের পরিমাণ বেশি থাকার কারণে এটি গর্ভাবস্থায়ও সমস্যা সৃষ্টি করতে পারে। এটি গর্ভবতী মহিলাদের মধ্যে উচ্চ রক্তচাপের কারণও হতে পারে। তবে এ সম্পর্কে আরও গবেষণা প্রয়োজন। সুতরাং, বিট নুনের ব্যবহার সীমাবদ্ধ করুন এবং খাওয়ার পরে যদি আপনি কোনও পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া অনুভব করেন তবে অবশ্যই ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করুন।

আশা করি বুঝতে পারলেন সাদা নুনের তুলনায় এটি কতটা ভালো। তবে সব জিনিসই পরিমান মতো খাওয়া উচিত, এর ক্ষেত্রেও ঠিক তাই।

নিজের যত্ন করুন ও সুস্থ থাকুন।

4  References :

Stylecraze has strict sourcing guidelines and relies on peer-reviewed studies, academic research institutions, and medical associations. We avoid using tertiary references. You can learn more about how we ensure our content is accurate and current by reading our editorial policy.

Was this article helpful?

LATEST ARTICLES

scorecardresearch