চুলের যত্নে ক্যাস্টর অয়েল | Castor Oil For Hair Care in Bengali

Written by

অতিরিক্ত চুল উঠছে? চুলের গোড়া খুব আলগা হয়ে গেছে? চুল রুক্ষ-শুষ্ক হয়ে উঠছে দিন দিন? তাহলে আপনি ব্যবহার করতে পারেন ক্যাস্টর অয়েল। এটি চুলের বৃদ্ধিতে সাহায্য করে, চুল ময়েশ্চারাইজ় করে, খুসকি দূর করে এবং স্কাল্পের সংক্রমণ প্রতিরোধ করে। তাছাড়াও চুলের সৌন্দর্য বৃদ্ধি করতে এর জুড়ি মেলা ভার। চুলের সুস্বাস্থ্য বজায় রাখতে ক্যাস্টর অয়েল অন্যতম সেরা ভেষজ উপাদান।

ক্যাস্টর অয়েল কীভাবে চুলের যত্ন নেয়, আমাদের এই প্রতিবেদনে রইল সেই বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা। সুন্দর ঘন চুল পেতে বিভিন্ন রকম ক্যাস্টর অয়েল হেয়ার মাস্ক ব্যবহার করতে পারেন। প্রোটিন, মিনারেল এবং ভিটামিন সমৃদ্ধ ক্যাস্টর অয়েলের নিয়মিত ব্যবহারে চুল হয়ে উঠবে ঝলমলে, উজ্জ্বল এবং মজবুত। সহজেই মিটবে চুলের নানা সমস্যা। এটি চুলের কোন কোন সমস্যা দূর করতে সাহায্য করে জানতে হলে পড়তে থাকুন।

চুলের জন্য ক্যাস্টর অয়েলের উপকারিতা

ক্যাস্টর অয়েল বা রেডির তেল প্রাকৃতিক গুণমানসম্পন্ন ভেষজ তেল। প্রতিদিন এর ব্যবহারে আপনিও পেতে পারেন এক ঢাল চুল। চুলে ক্যাস্টর অয়েল ব্যবহারের উপকারিতাগুলি হল –

  • চুলের বৃদ্ধি : ওমেগা ৬ এবং ফ্যাটি অ্যাসিড সমৃদ্ধ ক্যাস্টর অয়েল চুলের বৃদ্ধিতে সাহায্য করে (১)
  • চুল পড়া কমায় : এর অ্যান্টিব্যাকটেরিয়া, অ্যান্টিফাঙ্গাল এবং অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট উপাদান চুল পড়া রোধ করে (২)
  • খুশকি রোধ করে : খুশকি চুলের অন্যতম একটি সমস্যা। ক্যাস্টর অয়েল মাথায় লাগালে এই সমস্যা অনেকটাই কমানো সম্ভব।
  • চুলের ডগা ফাটা : সঠিক যত্নের অভাবে অনেকসময় চুলের ডগা ফেটে যায়। দেখতেও খারাপ লাগে আর চুলের বৃদ্ধি কমে যায়। ক্যাস্টর অয়েল এই সমস্যা দূর করতে দারুণ কার্যকরী (৩)
  • ঘন চুল : ক্যাস্টর অয়েল রক্ত সঞ্চালন যথাযথ রাখে। এর থেকে প্রয়োজনীয় অক্সিজেন এবং পুষ্টি চুলের গোড়ায় পৌঁছায়। সেইসঙ্গে চুলের ঘনত্ব বাড়ায় (৪)
  • প্রাকৃতিক কন্ডিশনার : অনেকে চুলের কোমলতা ধরে রাখতে কন্ডিশনার ব্যবহার করেন। চুলকে কন্ডিশন করতে এটি প্রাকৃতিক কন্ডিশনার হিসেবে কাজ করে। চুলের রুক্ষভাব দূর করে, চুল ওঠা কমায় (৫)
  • কালো চুল : অতিরিক্ত পলিউশন, সূর্যের অতি বেগুনি রশ্মি এসবের কারণে চুলের আসল রং অনেক সময় নষ্ট হয়ে যায়। চুলের প্রাকৃতিক রং ধরে রাখে। সেইসঙ্গে গাঢ় এবং কালো চুল পেতে ক্যাস্টর অয়েল উপকারী।
  • ঝলমলে চুল : নিয়মিত ক্যাস্টর অয়েলের ব্যবহার চুলের রুক্ষভাব দূর করে এবং চুল হয়ে ওঠে ঝলমলে।
  • চুলের ক্ষতি রোধ করে : চুলের ফলিকল অনেক সময় নষ্ট হয়ে যায়, তা ঠিক করতেও ক্যাস্টর অয়েল দারুণ কার্যকরী। এটি হেয়ার ড্যামেজ রোধ করে (৩)
  • স্কাল্পের রুক্ষভাব দূর করে : ক্যাস্টর অয়েল চুলের পাশাপাশি স্কাল্পের যত্ন নেয়। এর অ্যান্টি-ইনফ্ল্যামেটরি উপাদান স্কাল্পের সংক্রমণ রোধ করে (৬)

এবার জেনে নিন চুলের যত্ন নিতে কীভাবে ক্যাস্টর অয়েল ব্যবহার করবেন।

চুলের যত্নে ক্যাস্টর অয়েলের ব্যবহার

চুলের বৃদ্ধি ঘটাতে ক্যাস্টর অয়েল বিভিন্ন পদ্ধতিতে ব্যবহার করা যেতে পারে। অনেকে এটি স্কাল্পে ভালো করে ম্যাসাজ করে এবং ২-৩ রেখে ধুয়ে ফেলেন। আবার কেউ কেউ মাথায় সারারাত এই তেল লাগিয়ে রাখতে স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করেন। চুল পড়া রোধ করতে এবং চুলের বৃদ্ধি ঘটাতে ক্যাস্টর অয়েল ব্যবহারের সহজ উপায় –

১. চুল পড়া রোধ করতে ক্যাস্টর অয়েল

প্রয়োজনীয় উপকরণ 

  • ১/২ কাপ ক্যাস্টর অয়েল

কীভাবে ব্যবহার করবেন 

হাতে সামান্য ক্যাস্টর অয়েল নিয়ে চুলের গোড়া থেকে ডগা পর্যন্ত ভালো করে বেশ কয়েকবার লাগিয়ে নিন। এই তেল খুবই ঘন তাই অতিরিক্ত ব্যবহার করবেন না, নয়তো চুল পরিষ্কার করতে অসুবিধা হবে।

  • তেল লাগিয়ে ১৫-২০ মিনিট রাখতে পারেন। আপনি চাইলে সারারাতও রেখে দিতে পারেন।
  • শ্যাম্পু দিয়ে চুল ভালো করে ধুয়ে ফেলুন।
  • চুল পরিষ্কার হয়ে গেলে তোয়ালে দিয়ে হালকা করে মুছে শুকিয়ে নিন। কোনওরকম হেয়ার ড্রেয়ার ব্যবহার না করাই ভালো।

উপকারিতা 

এটি চুলে প্রয়োজনীয় পুষ্টি জোগাবে এবং চুল পড়া রোধ করবে।

২. চুল বৃদ্ধির জন্য ক্যাস্টর অয়েলের ব্যবহার

প্রয়োজনীয় উপকরণ 

  • ২ চামচ নারকেল তেল
  • ২ চামচ আলমন্ড অয়েল
  • ২ চামচ তিলের তেল
  • ১ চামচ ক্যাস্টর অয়েল

কীভাবে ব্যবহার করবেন 

  • চারটি তেল একসঙ্গে মিশিয়ে স্কাল্পে ভালো করে মালিশ করুন এবং চুলের গোড়া থেকে ডগা পর্যন্ত লাগিয়ে নিন।
  • তেল লাগিয়ে ঘণ্টা খানেক রেখে দিন। সারারাতও লাগিয়ে রাখতে পারেন।
  • শ্যাম্পু দিয়ে চুল ভালো করে পরিষ্কার করে নিন।

উপকারিতা 

এই মিশ্রণটি চুলকে গোড়া থেকে পুষ্টি জোগায়। চুলের বৃদ্ধিতে সাহায্য করে। আরও ভালো ফল পেতে এই মিশ্রণটিতে ভিটামিন ই ক্যাপসুল যোগ করতে পারেন।

চুল থেকে ক্যাস্টর অয়েল পরিষ্কার করার সহজ উপায়

  • স্কাল্প এবং চুল পরিষ্কার করতে হালকা গরম জল ব্যবহার করুন। এই পদ্ধতিতে স্কাল্পের লোমকূপগুলো খুলে যাবে এবং জমে থাকা ময়লা দূর হবে।
  • চুল ও স্কাল্পে শ্যাম্পু লাগিয়ে আলতোভাবে আঙুল দিয়ে ঘষে নিন। শ্যাম্পু লাগিয়ে কিছুক্ষণ রেখে দিন।
  • তারপর হালকা গরম জল দিয়ে চুল ভালো করে পরিষ্কার করে নিন। খেয়াল রাখবেন স্কাল্পে যেন শ্যাম্পু লেগে না থাকে।
  • কন্ডিশনার ব্যবহার করতে পারেন। ৩-৫ মিনিট লাগিয়ে রেখে ঠান্ডা জল দিয়ে চুল ধুয়ে ফেলুন।
  • শুকনো তোয়ালে দিয়ে হালকা করে চেপে চেপে চুল মুছে নিন। ভেজা চুল বেশি ঘষাঘষি করবেন না, তাতে আরও চুল উঠে যেতে পারে।
  • আপনার চুলের জন্য উপযুক্ত ভালো কোনও চিরুনি ব্যবহার করুন। কাঠের চিরুনি ব্যবহার করতে পারেন।

ক্যাস্টর অয়েল মাস্ক

নামীদামি ব্র্যান্ড বা পার্লার নয়, বাড়িতে বসেই আপনি পেতে পারেন সুন্দর ঝলমলে চুল। ক্যাস্টর অয়েল দিয়ে তৈরি করে ফেলুন কিছু হেয়ার মাস্ক, যা চুলকে ময়েশ্চারাইজ় করবে, পুষ্টি জোগাবে এবং চুলের সৌন্দর্য বাড়াবে।

ক্যাস্টর অয়েল এবং নারকেল তেল

উপকরণ 

  • ২ চামচ ক্যাস্টর অয়েল
  • ২ চামচ নারকেল তেল

কীভাবে ব্যবহার করবেন 

একটি পাত্রে তেল দুটি একসঙ্গে মিশিয়ে নিন এবং চুলে আলতো করে লাগিয়ে নিন।

  • স্কাল্পে অন্তত পাঁচ মিনিট ম্যাসাজ করুন।
  • এই হেয়ার মাস্ক কমপক্ষে ২ ঘণ্টা রেখে তারপর চুল ধুয়ে নিন। আপনি চাইলে হেয়ার মাস্কটি সারারাত লাগিয়ে রাখতে পারেন।
  • দ্রুত ফল পেতে সপ্তাহে ২ দিন তিন মাস পর্যন্ত এই মাস্ক ব্যবহার করতে পারেন।

উপকারিতা : নারকেল তেলের মধ্যে উপস্থিত ফ্যাটি অ্যাসিড চুল মজবুত করে এবং হেয়ার ড্যামেজ রোধ করে (৭)। চুলে প্রয়োজনীয় পুষ্টি পৌঁছে দেয়(৮) । তাছাড়াও চুলে প্রোটিন জোগায় ((৯)

অ্যালো ভেরা এবং ক্যাস্টর অয়েল

উপকরণ 

  • ২ চামচ ক্যাস্টর অয়েল
  • ১/২ কাপ অ্যালো ভেরা জেল
  • ১ চামচ তুলসি পাতা গুঁড়ো
  • ২ চামচ মেথি গুঁড়ো

কীভাবে ব্যবহার করবেন 

  • হ্যান্ড ব্লেন্ডারের সাহায্যে সব উপকরণগুলি একসঙ্গে মিশিয়ে ঘন পেস্ট তৈরি করে নিন।
  • মিশ্রণটি চুলের গোড়ায় এবং স্কাল্পে লাগিয়ে নিন।
  • ২-৩ ঘণ্টা এই হেয়ার মাস্কটি লাগিয়ে রাখুন, তাতে এটি চুলকে গোড়া থেকে পুষ্টি জোগাবে।
  • শ্যাম্পু এবং হালকা গরম জল দিয়ে চুল ধুয়ে ফেলুন।

উপকারিতা 

অ্যালো ভেরা স্কাল্পের অতিরিক্ত তেল, ময়লা দূর করে। ভিটামিন এ, সি এবং ই সমৃদ্ধ অ্যালোভেরা স্কাল্পের অক্সিডেটিভ স্ট্রেস দূর করে এবং চুল পড়া কমায় (১০)

ক্যাস্টর অয়েল এবং অলিভ অয়েল

উপকরণ 

  • ১-২ চামচ ক্যাস্টর অয়েল
  • ১-২ চামচ অলিভ অয়েল
  • ৫-৬ জবা ফুলের পাপড়ি

কীভাবে ব্যবহার করবেন 

  • দুটি তেল সমপরিমানে নিয়ে একটি ছোট্ট কাপে মিশিয়ে নিন।
  • তেলের মধ্যে কয়েকটা জবা ফুলের পাপড়ি যোগ করুন।
  • মাঝারি আঁচে ১০ মিনিট ধরে মিশ্রণটি গরম জরে নিন। ঠান্ডা হলে চুলে লাগিয়ে নিন।
  • স্কাল্পে মিশ্রণটি ১০-১৫ মিনিট ধরে মালিশ করুন।
  • আধভেজা তোয়ালে দিয়ে মাথা কিছুক্ষণ ঢেকে রাখুন।
  • আধঘণ্টা রেখে হালকা গরম জল এবং শ্যাম্পু দিয়ে চুল ধুয়ে ফেলুন।
  • ভালো ফল পেতে এক সপ্তাহ অন্তর এটি ব্যবহার করুন।

উপকারিতা 

ফ্যাটি অ্যাসিড সমৃদ্ধ অলিভ অয়েল চুল ময়েশ্চারাইজ় করতে সাহায্য করে (১১)। চুল পড়া কমায়। এর মধ্যে উপস্থিত উপাদানগুলি চুলের বৃদ্ধিতে সাহায্য করে (১২)

ক্যাস্টর অয়েল এবং আলমন্ড অয়েল

উপকরণ 

  • ২ চামচ ক্যাস্টর অয়েল
  • ২ চামচ আলমন্ড অয়েল

কীভাবে ব্যবহার করবেন 

  • একটি পাত্রে দুটি তেল একসঙ্গে মিশিয়ে মাঝারি আঁচে গরম করে নিন কিছুক্ষণ।
  • এই মিশ্রণটি স্কাল্প এবং চুলে লাগিয়ে নিন।
  • মিশ্রণটি ৫-১০ মিনিট ভালো করে ম্যাসাজ করে নিন।
  • হালকা গরম জল এবং শ্যাম্পু দিয়ে চুল ধুয়ে ফেলুন।

উপকারিতা 

আলমন্ড অয়েলের মধ্যে রয়েছে ৬৮% ওলিক অ্যাসিড এবং ২৫% লিনোলিক অ্যাসিড (১৩)। পরীক্ষায় দেখা গেছে এই তেল চুলের আদ্রতা বজায় রাখতে সাহায্য করে এবং চুলের বৃদ্ধি ঘটায়।

ক্যাস্টর অয়েল এবং সরষের তেল

উপকরণ

  • ১-২ চামচ ক্যাস্টর অয়েল
  • ১-২ চামচ সরষের তেল

কীভাবে ব্যবহার করবেন 

  • সমান পরিমানে সরষের তেল এবং ক্যাস্টর অয়েল নিয়ে একটি পাত্রে মিশিয়ে নিন।
  • স্কাল্প ও চুলে ভালো করে তেল মালিশ করে নিন।
  • তোয়ালে দিয়ে চুল ৩০ মিনিট ঢেকে রাখুন।
  • তারপর হালকা গরম জল দিয়ে চুল ধুয়ে ফেলুন।

উপকারিতা 

এটি আপনার চুলের জন্য স্বাস্থ্যকর টনিক হিসেবে কাজ করে যা চুল ও স্কাল্পের সুস্বাস্থ্য বজায় রাখে।

ক্যাস্টর অয়েল এবং রোজমেরি অয়েল

উপকরণ 

  • ২ চামচ ক্যাস্টর অয়েল
  • ২ চামচ নারকেল তেল
  • ২-৩ চামচ রোজমেরি এসেনসিয়াল অয়েল

কীভাবে ব্যবহার করবেন 

  • একটি পাত্রে ক্যাস্টর অয়েল এবং নারকেল তেল নিয়ে সামান্য গরম করে নিন।
  • তাতে কয়েক ফোঁটা রোজমেরি এসেনসিয়াল অয়েল যোগ করুন।
  • এই গরম তেলের মিশ্রণটি স্কাল্প ও চুলে ৫-১০ মিনিট মালিশ করুন।
  • তেল লাগিয়ে আরও ১৫ মিনিট রেখে দিন।
  • তারপর শ্যাম্পু দিয়ে চুল ধুয়ে ফেলুন।
  • আশানুরূপ ফল পেতে প্রত্যেক সপ্তাহে একবার করে এই মাস্ক ব্যবহার করতে পারেন।

উপকারিতা 

অতিরিক্ত চুল পড়া রোধ করতে এবং চুলের বৃদ্ধি ঘটাতে এটি দারুণ উপকারী (১৪)। রোজমেরি অয়েলের মধ্যে রয়েছে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট এবং অ্যান্টিমাইক্রোবিয়াল উপাদান যা চুলের ক্ষতি এবং ফাঙ্গাল ইনফেকশন রোধ করে। সেই সঙ্গে চুলের গোছও বাড়ায় (১৫)

ক্যাস্টর অয়েল এবং পেঁয়াজের রস

উপকরণ 

  • ২ চামচ ক্যাস্টর অয়েল
  • ২ চামচ পিঁয়াজের রস

কীভাবে ব্যবহার করবেন 

  • একটি পাত্রে ২ চামচ ক্যাস্টর অয়েল এবং ২ চামচ পিঁয়াজের রস মিশিয়ে নিন।
  • স্কাল্প ও চুলে ভালো করে মিশ্রণটি মালিশ করুন।
  • ঘণ্টাখানেক এভাবেই রেখে দিন।
  • হালকা গরম জল এবং শ্যাম্পু দিয়ে চুল ধুয়ে নিন।

উপকারিতা 

পরীক্ষায় দেখা গেছে ৮৭% মানুষ চুলে পিঁয়াজের রস লাগিয়ে ভালো ফল পেয়েছেন (১৬)। পিঁয়াজের মধ্যে উপস্থিত পুষ্টিগুণ চুল মজবুত এবং ঝলমলে করে তোলে।

ক্যাস্টর অয়েল এবং রসুন

উপকরণ 

  • ৬ চামচ রসুন তেল
  • ২ চামচ ক্যাস্টর অয়েল এবং নারকেল তেল
  • ১ চামচ রোজমেরি অয়েল

কীভাবে ব্যবহার করবেন 

  • সব উপকরণগুলি একটি পাত্রে মিশিয়ে নিন।
  • স্কাল্প ও চুলে মিশ্রণটি ভালো করে মালিশ করুন।
  • এক ঘণ্টা রেখে ঠান্ডা জল দিয়ে চুল ধুয়ে ফেলুন।

উপকারিতা 

এটি ব্যবহারে চুলের সুস্বাস্থ্য ফিরে আসে। খুশকি দূর হয় এবং স্কাল্পের চুলভাবও দূর হয়।

ক্যাস্টর অয়েল এবং গিলিসারিন

উপকরণ 

  • ১ চামচ গিলিসারিন
  • ১ চামচ ক্যাস্টর অয়েল
  • ২ চামচ জল

কীভাবে ব্যবহার করবেন 

  • একটি পাত্রে তিনটি উপাদান একসঙ্গে মিশিয়ে নিন।
  • স্কাল্প ও চুলে ভালোভাবে মালিশ করে নিন।
  • কিছু রেখে হালকা গরম জল ও শ্যাম্পু দিয়ে চুল পরিষ্কার করে নিন।

উপকারিতা 

এই মাস্কের ব্যবহারে চুল মজবুত হয়। সেইসঙ্গে খুশকির সমস্যা দূর হয় এবং স্কাল্পে কোনওরকম সংক্রমণের সম্ভাবনা দূর হয়। চুলের আদ্রতা বজায় রাখে।

ক্যাস্টর অয়েল এবং আদার রস

উপকরণ 

  • ২ চামচ ক্যাস্টর অয়েল
  • ২ চামচ আদার রস
  • ১ চামচ অলিভ অয়েল

কীভাবে ব্যবহার করবেন 

একটি পাত্রে উপকরণগুলি একসঙ্গে মিশিয়ে নিন।

  • মিশ্রণটি স্কাল্প ও চুলে ভালোভাবে লাগিয়ে কিছুক্ষণ রেখে দিন।
  • ঘণ্টা খানেক রাখার পর শ্যাম্পু দিয়ে চুল ধুয়ে ফেলুন।

উপকারিতা 

সপ্তাহে ২-৩ বার এর ব্যবহারে চমৎকার ফল পাবেন। চুল গ্রোথও যেমন হবে তেমনই আপনার চুল হয়ে উঠবে ঝলমলে।

ক্যাস্টর অয়েল ব্যবহারের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া

১. ক্যাস্টর অয়েল যদি অন্য কোনও তেলের সঙ্গে না মিশিয়ে বা সঠিক মাত্রায় ব্যবহার না করলে ক্ষতিকারক হতে পারে (১৭)

২. অতিরিক্ত মাত্রা ক্যাস্টর অয়েলের ব্যবহার স্কাল্পের লোমকূপগুলো বন্ধ করে দিতে পারে এবং চুলে তৈলাক্ত ভাব বাড়াতে পারে।

৩. সবার ত্বকে এই তেল সহ্য নাও হতে পারে। এটি ত্বকে অ্যালার্জি কারণ হতে পারে।

একটা বয়স পর স্বাভাবিকভাবেই চুল উঠতে শুরু করে। আজকাল অবশ্য এর জন্য আর বয়স লাগে না। অকালেই গোছা গোছা চুল উঠে টাক পড়ার জোগাড়! অথবা অকালেই চুলে পাক ধরেছে যার প্রভাব পড়েছে ব্যক্তিত্বের উপর। তাই এই সমস্যাকে অবহেলা করবেন না। সময় থাকতে চুলের যত্ন নিন প্রাকৃতিক এই উপাদানের সাহায্য। নামীদামী ব্র্যান্ডের প্রোডাক্ট বা পার্লারে মোটা টাকা খরচ করার আগে বাড়িতেই ব্যবহার করে দেখুন ক্যাস্টর অয়েল।

Sources

Stylecraze has strict sourcing guidelines and relies on peer-reviewed studies, academic research institutions, and medical associations. We avoid using tertiary references. You can learn more about how we ensure our content is accurate and current by reading our editorial policy.

Was this article helpful?
The following two tabs change content below.