ওজন হ্রাসে প্যালিয়ো ডায়েট (Paleo Diet) -এর ভূমিকা | Paleo Diet For Weight Loss in Bengali

Written by

ওজন কমাতে চান? তাহলে নিয়মিত যোগ অভ্যাস, ব্যায়ামের মাধ্যমে শরীরচর্চার পাশাপাশি দরকার খাদ্যাভ্যাসের কিছু পরিবর্তন। কিটো ডায়েট (Keto Diet), ইন্টারমিটেন্ট ফাস্টিং (Intermittent Fasting) ইত্যাদির মত বিভিন্ন ধরণের ডায়েট প্ল্যানের নাম শুনেছেন নিশ্চয়ই। আর ভাবছেন, এতসব ডায়েট পরিকল্পনার মধ্যে কোনটা বেশি কার্যকরী হবে ওজন কমানোর জন্য।

স্টাইলক্রেজের এই নিবন্ধে  আজকে তাই জানাব, অভিনব এক ডায়েট প্ল্যান সম্পর্কে। প্যালিয়ো ডায়েট (Paleo Diet) – যাকে ক্যাফম্যান ডায়েট বা স্টোন এজ ডায়েটও বলা হয়।এই ডায়েট পরিকল্পনার নাম হতে পারে আপনার কাছে নতুন। তবে, এটি একটি খুব জনপ্রিয় ডায়েট প্ল্যান যার সাফল্যের হার ১০০ শতাংশ প্রায়।

আজকে আমরা এই প্যালিয়ো ডায়েট কী, কী কী খাবার এতে খাওয়া যায়, কোন কোন খাবার এড়িয়ে চলতে হয় এবং প্যালিয়ো ডায়েটের উপকারীতাই বা কী তা সম্পর্কে সবিস্তারে তথ্য দেওয়ার চেষ্টা করব। কেবল এটিই নয়, প্যালিও ডায়েটের যেসব অপকারীতা বা পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া আছে বা কাদের জন্য এই ডায়েট প্ল্যান শারীরিক অসুবিধার সৃষ্টি করতে পারে  সেসব সম্পর্কেও বলব।

প্যালিয়ো ডায়েট কি সত্যিই ওজন হ্রাস করতে সহায়তা করতে পারে? – এই প্রশ্নটি এখন নিশ্চই আপনার মনের মধ্যে চলছে। তবে, অবশ্যই শেষ পর্যন্ত এই নিবন্ধটি পড়ুন।

প্যালিয়ো ডায়েট (Paleo Diet) কী?

ওজন বাড়ানো স্বাস্থ্যের পক্ষে ক্ষতিকারক হতে পারে। তাই কিছু লোক যোগ, ব্যায়াম এবং অন্যান্য পদ্ধতির পাশাপাশি বিভিন্ন ধরণের ডায়েট প্ল্যান অবলম্বন করেন। এর মধ্যে একটি হল প্যালিও ডায়েট যা স্টোন-এজ ডায়েট নামেও পরিচিত। প্যালেওলিথিক যুগে প্রাচীন মানুষরা যে খাবার খেত, তা অত্যন্ত স্বাস্থ্যকর ছিল। – এই নীতিকে ভিত্তি করেই তৈরি করা হয়েছে প্যালিয়ো ডায়েট, যাকে ক্যাফম্যান ডায়েটও বলে অনেকে। এর অর্থ হল প্যালিও ডায়েট প্রাকৃতিক খাবার যেমন তাজা ফলমূল, শাক-সবজি, মাছ, মাংস, ডিম, বাদাম ইত্যাদি খাওয়ার ওপর এবং আধুনিক প্রক্রিয়াজাত খাবারগুলি বর্জন করার উপর জোর দেয়। একই সাথে, এটি শস্য, দুগ্ধজাত খাবার, লবণ, প্রক্রিয়াজাত ফ্যাট এবং চিনি জাতীয় খাবার থেকে নিজেকে দূরে রাখার কথা বলা হয় এই ডায়েট প্ল্যানে।

প্যালিয়ো ডায়েটের ধারণাটি খুব সহজ – প্রাকৃতিক ও স্বাস্থ্যকর খাবার খাওয়া এবং প্রক্রিয়াজাতকরণ ও অস্বাস্থ্যকর খাবারগুলি এড়িয়ে চলা। এই ডায়েটটি আপনাকে এমন দিনগুলিতে নিয়ে যাবে, যখন কোনও জিম ফুড ছিল না,  জাঙ্ক ফুড ছিল না, ছিল না প্যাকেটজাত খাবার। বর্তমানে আমরা আমরা হিমায়িত, প্রক্রিয়াজাতকরণ এবং জাঙ্ক ফুডের উপর খুব বেশী নির্ভরশীল হয়ে পড়েছি। তবে, চিন্তা করবেন না, একবার আপনি প্যালিয়ো ডায়েট অনুসারে তাজা মাছ-মাংস, শাকসবজি, স্থানীয় ফল এবং স্বাস্থ্যকর ফ্যাট  খাওয়ার অভ্যাস শুরু করলে আপনার সমস্ত অস্বাস্থ্যকর খাদ্যাভাস স্বয়ংক্রিয়ভাবে নিজে থেকেই ছেড়ে যাবে।

প্যালিয়ো ডায়েট একটি স্বাস্থ্যকর জীবনযাত্রার অনুসরণের মাধ্যমে বর্তমানের প্রায় সমস্ত শারীরিক সমস্য, রোগভোগ যেমন – স্থূলত্ব, ডায়াবেটিস, হার্টের সমস্যা ইত্যাদি প্রতিরোধ করতে সাহায্য করে। (1) নিবন্ধের পরবর্তী অংশে, আমরা প্যালিয়ো ডায়েট পরিকল্পনার উপকারীতা সম্পর্কে জানানো হবে।

প্যালিয়ো ডায়েটের উপকারিতা

প্যালিয়ো ডায়েটের মাধ্যমে আপনি সম্পূর্ণ প্রাকৃতিক খাবার খাবেন তাই প্রক্রিয়াজাত খাবারের কৃত্রিম রঙ, ফ্লেভার বা গন্ধ, খাবার সংরক্ষণের জন্য দেওয়া রাসায়নিক উপাদান বা ফুড অ্যাডিটিভস – এর মত ক্ষতিকারক উপাদান আপনার শরীরে প্রবেশ করবে না। এরম স্বাস্থ্যকর খাদ্যাভ্যাস এবং সুনিয়ন্ত্রিত জীবনযাত্রা যে আপনাকে বিভিন্ন ধরণের রোগভোগ বা শারীরিক সমস্যা থেকে দূরে রাখবে তা আর বলার অপেক্ষা রাখে না। (2) যেমন –

আপনার হৃদরোগের ঝুঁকি কমে যেতে পারে।

ক্যান্সারের ঝুঁকি হ্রাস পায়।

টাইপ-2 ডায়াবেটিসের ঝুঁকি হ্রাস হতে পারে।

হজমের গোলযোগ থাকলে সেই সমস্যা কমে।

পিম্পলস বা ব্রণ –র সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়া যায়।

মায়োপিয়া নামক এক ধরণের চোখের সমস্যা রোধ করতে পারে।

এইসব জটিল রোগ প্রতিরোধের পাশাপাশি এই ডায়েট আপনাকে তরতাজা এবং প্রাণবন্ত রাখবে সারাদিন।ডায়েটের অন্তর্ভুক্ত রেড মিট আপনার শরীরকে আয়রন সরবরাহ করবে; ফলে আপনি ক্লান্তি অনুভব করবেন না। বলাইবাহুল্য যে, টাটকা ফলমূল, শাকসবজি, বাদাম ইত্যাদিতে থাকা অ্যান্টি-ইনফ্ল্যামেটরি উপাদান আপনার রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করবে।

প্যালিয়ো ডায়েট প্ল্যান অনুসরণ করলে আপনি আস্তে আস্তে ওজন কমাতে পারবেন ঠিকই, তবে এটি দীর্ঘ সময়ের জন্য বজায় রাখতে সক্ষম হবেন। প্যালিয়ো ডায়েটের উপকারীতাগুলি জানার পরে, এবার নিশভই খাবারের পরিকল্পনা সম্পর্কে জানতে চান। অতএব, নিবন্ধের পরবর্তী অংশে, জেনে নিন প্যালিয়ো ডায়েটের খাবারের পরিকল্পনা কী হতে পারে।

প্যালিও ডায়েটে ৭ দিনের খাবার পরিকল্পনা

প্যালিও ডায়েট অনুসারে খাদ্যাভ্যাস গড়ে তুলবেন, ভাবছেন? খুব ভাল কথা। জেনে নিন, কখন কী খাবেন। নীচে ৭ দিনের খাবার পরিকল্পনা রইল –

দিনকখন কী খাবেন
 

সোমবার

  • Breakfast বা প্রাতঃরাশ এক বা দুটি ডিম, অলিভ অয়েলে হালকা ভাজা শাকসবজি, যে কোনও একটি ফল এবং পাঁচটি ভেজানো বাদাম।
  • Lunch বা মধ্যাহ্নভোজন এক মুষ্টি বাদামের সাথে চিকেন স্যালাড।
  • Dinner বা রাতের খাবার হালকা ভাজা শাকসবজি দিয়ে সিদ্ধ বা ভাজা মাছ।
 

মঙ্গলবার

  • Breakfast বা প্রাতঃরাশপ্রচুর সবজি সহ ডিমের ভুরজি
  • Lunch বা মধ্যাহ্নভোজনফিশ স্যালাড বা চিকেন স্যালাড
  • Dinner বা রাতের খাবারভুনা চিকেন এবং শাকসবজি সহ ঘরে তৈরি মাশরুম স্যুপ।
 

বুধবার

  • Breakfast বা প্রাতঃরাশএক বা দুটি ডিমের অমলেট, ১ বাটি তরমুজ এবং আধা চা চামচ ফ্ল্যাক্স সিডের বীজ
  • Lunch বা মধ্যাহ্নভোজনগ্রিন বিন স্যালাড দিয়ে গ্রিলড চিকেন
  • Dinner বা রাতের খাবার১ বাটি বাঁধাকপি স্যুপের সাথে ১ টি বেকড মাছের পিস
 

বৃহস্পতিবার

  • Breakfast বা প্রাতঃরাশএকটি বা দুটি বেকড ডিম এবং ব্রকলি
  • Lunch বা মধ্যাহ্নভোজনঅ্যাভোকাডো এবং লেটুস সহযোগে মাছ
  • Dinner বা রাতের খাবারমাংস এবং শাকসবজি
 

শুক্রবার

  • Breakfast বা প্রাতঃরাশক্যাপসিকাম সহ ডিমের অমলেট
  • Lunch বা মধ্যাহ্নভোজনভুনা চিকেন (মশলাদার)
  • Dinner বা রাতের খাবারচিকেন চেট্টিনাদ (দক্ষিণ ভারতীয় চিকেন কারি) সাথে হালকা ভাজা শাকসবজি
 

শনিবার

  • Breakfast বা প্রাতঃরাশমিষ্টি আলুর সাথে ডিমের ভুরজি
  • Lunch বা মধ্যাহ্নভোজনসাইট্রাস এবং হার্ব চিকেন
  • Dinner বা রাতের খাবারলেবু এবং থাইমের সাহায্যে বেকড মাছ
 

রবিবার

  • Breakfast বা প্রাতঃরাশটমেটো এবং পেঁয়াজ দিয়ে সিদ্ধ ডিম
  • Lunch বা মধ্যাহ্নভোজনভাজা টমেটো দিয়ে চিকেন
  • Dinner বা রাতের খাবারগ্রিলড ভেজিটেবল স্যালাড বা গ্রিলড চিকেন সহযোগে গ্রিলড ভেজিটেবল স্যালাড

মনে রাখবেন এই তালিকাটি নমুনা হিসাবে দেওয়া হচ্ছে। এতে উল্লিখিত খাবারগুলি এবং তার পরিমাণ ব্যক্তির বয়স, স্বাস্থ্য, প্রয়োজন এবং পছন্দ অনুযায়ী পরিবর্তন করা যেতে পারে। এর জন্য আপনি একবার ডায়েটিশিয়ানের পরামর্শ নিতে পারেন।

প্যালিয়ো ডায়েটে আরোও অনেক কিছু সুস্বাদু প্রাকৃতিক খাবার খাওয়া যায়। আবার, কিছু খাবারের ওপর রয়েছে কড়া নিষেধাজ্ঞা। নিবন্ধের এই অংশে এবারে জেনে নিন, আরোও কী কী খাবার খাওয়া যায় আর কী কী খাবার খাওয়া যায় না –

প্যালিয়ো ডায়েটে কী কী খাবার খাওয়া যায়

যদি কেউ উপরের চার্টটি অনুসরণ করতে না পারে তবে কমপক্ষে ডিম, চর্বিযুক্ত মুরগির মাংস, বাদাম, সবুজ টাটকা শাকসবজি –এর মত খাবারগুলি তাদের প্যালিয়ো ডায়েটে অন্তর্ভুক্ত করতে হবে। আর ভাজাভুজি করার জন্য অবশ্যই অলিভ অয়েল বা নারকেল তেল ব্যবহার করতে হবে। মিষ্টি স্বাদের জন্য মিষ্টি আলু এবং সামান্য পরিমাণে মধুও ব্যবহার করা যেতে পারে এই ডায়েট অনুসারে।(3)

প্যালিয়ো ডায়েট অনুসরণ করলে যেসব খাবার চোখ বন্ধ করে খেতে পারেন তার তালিকা রইল নীচে –

  • শাকসবজিব্রোকলি, ফুলকপি, শসা, টমেটো, শালগম (Turnip), পার্সনিপস (Parsnips), স্ক্যালিয়নস বা সবুজ পেঁয়াজ, পেঁয়াজ, গাজর, বাঁধাকপি, মিষ্টি আলু, ওকরা, বেগুন, জুকিনি (Zucchini), কুমড়ো, লাউ, ঝিঙে, চিচিঙে,  স্কোয়াশ ইত্যাদি
  • ফলবেরি, তরমুজ, ফুটি বা খরমুজ, আঙ্গুর, পীচ বা জাম জাতীয় একটি ফল, অ্যাভোকাডো, তাল, কমলালেবু, পাতিলেবু, শরবতি লেবু বা মুসাম্বি লেবু (Grapefruit), আঙুর, এপ্রিকোট (Apricot) ইত্যাদি
  • প্রোটিনমাশরুম, ডিম, মাছ, মুরগির মাংস,  ঘাস খাওয়ানো গরুর মাংস যাকে বলে grass-fed meat, টফু, ঝিনুক এবং চিংড়ি।
  • বাদাম বীজফ্ল্যাক্স বীজ, সিয়া বীজ, আমন্ড বাদাম, ম্যাকডামিয়া, পেস্তা, আখরোট, পাইন বাদাম ইত্যাদি
  • তেলজলপাই তেল বা অলিভ অয়েল, সূর্যমুখী মাখন (Sunflower Butter), ফ্ল্যাক্স সিড মাখন (Flaxseed Butter) এবং নারকেল তেল
  • ভেষজ মশলাজিরা, ধনিয়া, এলাচ, দারুচিনি, হলুদ, মরিচ গুঁড়ো, শুকনো লাল লংকার গুঁড়ো, অরিগ্যানো, ডিল, থাইমে, গোলাপের ডাল, তুলসী, স্টার অ্যানিস, অ্যালস্পাইস, গদা, জায়ফল, জাফরান, লবঙ্গ, ধনেপাতা ইত্যাদি
  • পানীয় – নারকেল জল, টাটকা ফলমূল ও শাকসবজির রস এবং শাকসবজি বা ফলের স্মুদি ইত্যাদি

প্যালিয়ো ডায়েটে কী কী খাবার খাওয়া যায় না

আস্ত শস্যদানা, চিনি, দুগ্ধজাত পণ্য, আলু, বাদামের মধ্যে চিনা বাদাম, মটরশুটি, মুসুর ডাল, কফি, কাঁচা নুন, পরিশোধিত উদ্ভিজ্জ তেল যেমন বনস্পতির তেল দিয়ে রান্না করা খাবার খাওয়া একেবারেই মানা এই প্যালিয়ো ডায়েটে। এছাড়াও –

  • শাকসবজি আলু
  • শস্য সমস্ত ধরণের দানা শস্য জাতীয় খাবার বাদ দিন, কারণ প্যালিওলিথিক যুগে শস্য রান্নার কোনও ব্যবস্থা ছিল না।
  • প্রোটিন সমস্ত লেবু এবং শস্যযুক্ত মাংস এড়িয়ে চলুন।
  • দুধ দুগ্ধজাত পণ্য – দুধ এবং সমস্ত দুগ্ধজাত পণ্য এড়িয়ে চলুন।
  • চর্বি এবং তেল মাখন, মার্জারিন, ঘি, যে কোনো রিফাইন্ড তেল যেমন সোয়াবিন তেল, সূর্যমুখী তেল, এবং পশুর চর্বি।
  • পানীয় প্যাকেটজাত ফল এবং শাকসবজির জুস, সোডা, ডায়েট সোডা, বাটার মিল্ক, বাজার চলতি বিভিন্ন ধরণের এনার্জি ড্রিংকস এবং সীমাহীন পরিমাণে অ্যালকোহল।

প্যালিয়ো ডায়েটের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া বা অসুবিধা

প্রত্যেকটি জিনিসেরই নির্দিষ্ট কিছু সুবিধা এবং অসুবিধা রয়েছে। প্যালিয়ো ডায়েটও এর বিকল্প না। উপকারিতার পাশাপাশি রয়েছে এই ডায়েটের বেশ কিছু অসুবিধা এবং পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া। নিবন্ধের পরবর্তী অংশে, জেনে নিন প্যালিয়ো ডায়েট প্ল্যানের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়াগুলি কী হতে পারে।

  • প্যালিয়ো ডায়েট প্ল্যানে অনেকগুলি বিষয় যত্ন নেওয়া গুরুত্বপূর্ণ। যেমন – এই ডায়েট টাটকা খাবারের উপর নির্ভর করে। এমনকী যখন তখন খাবার খাওয়াও যাবে না প্যালিয়ো ডায়েটে থাকাকালীন সময়ে। নির্দিষ্ট সময়ে নির্দিষ্ট পরিমাণে খাবারই খেতে হয় পরিকল্পনা অনুসারে। তাই,  আমাদের আজকের এই ব্যস্ত জীবনযাপনে, খাবার প্রস্তুত এবং রান্না করার জন্য সময় বের করা কিছুটা কঠিন হতে পারে।
  • এই ডায়েটে বাসি খাবার খাওয়া যায় না। তাই, রোজ রোজ টাটকা সবজি, ফলমূল, মাছ, মাংস, বিশেষত grass-fed meat কেনা বেশ খরচ সাপেক্ষ একটি ব্যাপার।
  • বিভিন্ন ধরণের খাদ্যশস্য এবং শস্যজাতীয় খাবার পুরোপুরি এড়িয়ে চলার পরামর্শ দেওয়া হয় এই ডায়েটে। এতে, আপনার শরীর নির্দিষ্ট কিছু প্রয়োজনীয় ভিটামিন এবং খনিজ উপাদান থেকে বঞ্চিত হয়। এছাড়াও, গোটা দানা না খাওয়ার ফলে ফাইবারের মতো উপকারী পুষ্টির ঘাটতি দেখা দিতে পারে যা ডায়াবেটিস এবং হৃদরোগের ঝুঁকি বাড়িয়ে তোলে।
  • দুধ এবং দুগ্ধজাতীয় খাবারগুলি এই ডায়েটে খাওয়া হয় না। এ জাতীয় পরিস্থিতিতে, এই ডায়েট আপনার দেহে ক্যালসিয়াম, ভিটামিন-বি এবং ভিটামিন-ডি জাতীয় পুষ্টির ঘাটতি তৈরি করতে পারে। তাই, ডায়েটের পাশাপাশি এমন কিছু অ-দুগ্ধজাত খাবার গ্রহণ করা প্রয়োজন, যাতে শরীর ক্যালসিয়াম পায়।  ঘাটতি দেখা দিতে পারে।
  • নিরামিষাশীদের জন্য এই ডায়েটটি খুব কঠিন কারণ এই ডায়েটে শস্যজাতীয় খাবার, দুধ এবং দুগ্ধজাত খাবার সম্পূর্ণরূপে বাদ দেওয়া হয়।
  • এছাড়াও, ডায়েটে এমন কিছু খাবার খাওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয় যাতে আমাদের শরীর সব পুষ্টি উপাদান পায় এবং সুস্থ থাকে। তবে ডায়েটে উল্লিখিত খাবারগুলির মধ্যে কোনো খাদ্য উপাদানে যদি কোনো ব্যক্তির অ্যালার্জি থাকে, সেইসব খাবার অবশ্যই এড়িয়ে চলবেন।

ডায়েট প্ল্যানের সুবিধাগুলি জানার পরেও যদি এই ডায়েট অনুসারে খাবার খাওয়ার পরিকল্পনা করে থাকেন, তবে ডায়েট শুরু করার আগে অবশ্যই একজন ডায়েটিশিয়ান বা চিকিৎসকের পরামর্শ নেবেন। একজন বিশেষজ্ঞই বুঝতে পারবেন, আপনার শরীরের জন্য কতটা পুষ্টি উপাদান কি পরিমাণে প্রয়োজন। তাই, তিনিই আপনার শরীরের পুষ্টির চাহিদা অনুসারে আপনাকে ডায়েট চার্ট বানিয়ে দেবেন।

উপসংহার

প্যালিয়ো ডায়েটের ধারণাটি প্রথমে ১৯৭৫ সালে প্রবর্তিত হয়েছিল। তবে, লরেন কর্ডাইন (Loren Cordain) ‘দি প্যালিয়ো ডায়েট’ ২০০২ সালে প্রকাশের পরে এই ডায়েট পরিকল্পনাটি জনপ্রিয় হয়ে ওঠে।(4) তবে, অনেকের মনে প্রশ্ন আসতেই পারে যে ওজন বৃদ্ধি কমাতে প্যালিয়ো ডায়েট কি সতিই কার্যকরী?

বিজ্ঞানীরা এ বিষয়ে একটি গবেষণা করেছেন। গবেষণায় বিজ্ঞানীরা মেনোপজ হয়ে গেছে এমন মধ্যবয়স্কা মোটা মহিলাদের অন্তর্ভুক্ত করেছিলেন এই গবেষণায়। এনসিবিআইয়ের (ন্যাশনাল সেন্টার ফর বায়োটেকনোলজিক ইনফরমেশন) ওয়েবসাইটে প্রকাশিত এই গবেষণা অনুসারে, এই মহিলাদের দুই ধরণের ডায়েটে রাখা হয়েছিল, যার মধ্যে একটি ছিল প্যালিও ডায়েট।গবেষণায় প্যালিয়ো ডায়েট অনুসরণ করেছেন যেসব মহিলারা তাদের মধ্যে চর্বি বা মেদ ঝড়ে স্থূলত্ব হ্রাসের উল্লেখযোগ্য প্রমাণ পাওয়া গেছে। অন্যান্য ডায়েটের তুলনায় প্যালিয়ো ডায়েট অনুসরণ করা মহিলাদের মধ্যে ট্রাইগ্লিসারাইড (এক ধরণের ফ্যাট) এর মাত্রা উল্লেখযোগ্যভাবে হ্রাস পেয়েছিল। এটি এখনও পর্যন্ত প্রাথমিক গবেষণা। এই বিষয়ে আরও গবেষণা করা এখনও বাকি।

উপরে বর্ণিত গবেষণার দিকে নজর দিলে বুঝতে পারবেন প্যালিয়ো ডায়েট কিভাবে ওজন হ্রাস করতে সাহায্য করে। তবে, ওজন হ্রাস কতটা করবেন, কীভাবে করবেন এইসব ব্যাপারটা নির্ভর করে ব্যক্তি বিশেষের স্বাস্থ্যের ও ওজনের উপর। সবার শারীরিক অবস্থা এক নয়। এমন পরিস্থিতিতে প্যালিও ডায়েট সবার জন্য কার্যকর কিনা তা বলা সামান্য কঠিন। হ্যাঁ, এটি বলা যেতে পারে আপনি যদি স্থূলত্বের মত জটিল সমস্যায় ভোগেন তবে প্যালিয়ো ডায়েটের মাধ্যমে মেদ ঝড়াতে পারেন ধীরে ধীরে, আর এতে ডায়বেটিক বা হৃদরোগের মত কিছু জটিল রোগের ঝুঁকিও হ্রাস হতে পারে। (5)

অবশেষে, আপনার যদি প্যালিও ডায়েট সম্পর্কিত কোনও প্রশ্ন বা পরামর্শ থাকে তবে আপনি আমাদের তা জানাতে পারেন।নীচে সম্ভাব্য জিজ্ঞাস্য কিছু প্রশ্নের অগ্রিম উত্তর দেওয়া রইল।

সম্ভাব্য জিজ্ঞাস্য প্রশ্নাবলী

প্যালিয়ো ডায়েট কি ওজন কমাতে পারে?

হ্যাঁ, প্যালিয়ো ডায়েট সত্যিই ওজন কমাতে পারে। ওজন হ্রাসের প্রক্রিয়া অন্যান্য ডায়েটের তুলনায় বেশী সময়সাপেক্ষ হলেও এর প্রভাব থাকে দীর্ঘদিন। (6)

ভাত কি প্যালিয়ো ডায়েটের অংশ?

না, ভাত প্যালিয়ো ডায়েটের খাদ্য তালিকায় ভাত নেই কারণ এটি একটি শস্যজাতীয় খাবার। তবে, অনেক পালিয়ো ডায়েট অনুসরণকারীরা মাঝে মাঝে ভাত খান। তবে, যদি কোনও ব্যক্তি প্যালিয়ো ডায়েট শুরু করে থাকেন তবে প্যালিয়ো ডায়েটের তৃতীয় পর্ব না পড়া পর্যন্ত ভাত না খাওয়াই ভাল। ডায়েটিশিয়ানদের থেকে এ বিষয়ে পরামর্শ নেওয়া যেতে পারে।

প্যালিয়ো ডায়েটে কি পনির খাওয়া যেতে পারে?

দুগ্ধজাত খাবার পালিয়ো ডায়েট এড়িয়ে চলা উচিত। তাই ডায়েটে পনির অন্তর্ভুক্ত না করাই ভালো। তবে ক্যালশিয়ামের চাহিদা পূরণের জন্য যদি পনির বা চিজ খেতে চান, ডায়েটিশিয়ানদের সাথে পরামর্শ করুন।

প্যালিয়ো ডায়েটে আপনি কত দ্রুত ওজন হ্রাস করতে পারেন?

ডায়েটের প্রথম সপ্তাহে দেহের ফোলাভাব বলা ভালো ওয়াটার ওয়েট বা জলের জন্য হওয়া বাড়তি ওজন বা শরীরের ফোলাভাব হ্রাস করা যায়। সুতরাং, প্রথম সপ্তাহে অনেক ওজন হ্রাস হওয়ার সম্ভাবনা থাকতে পারে। একই সময়ে, দ্বিতীয় সপ্তাহে শরীরের মেদ বা চর্বি কমে যেতে পারে, যা প্যালিয়ো ডায়েটের প্রধান লক্ষ্য।

তবে, কীভাবে দ্রুত ওজন হ্রাস করা যায় তা নির্ভর করে ব্যক্তির প্রাথমিক ওজন, চিকিৎসাধীন শারীরিক অবস্থা এবং রোগবিশেষে নির্দিষ্ট যেসব ওষুধ তিনি খান তার উপর। গুরুত্বপূর্ন এইসব শর্ত মেনে আপনার ডায়েটিশিয়ান আপনাকে যে খাদ্য তালিকা প্রস্তুত করে দেবে, সেই  ডায়েট অনুসরণ করার চেষ্টা করুন। ডায়েটটি সঠিকভাবে অনুসরণ করলে ধীরে ধীরে উপযুক্ত ফল পাবেন।

নিরামিষাশী হিসাবে আপনি কি প্যালিয়ো ডায়েট করতে পারেন?

নিরামিষাশী হিসাবেও আপনি এই ডায়েট প্ল্যানটি অনুসরণ করতে পারেন। তবে, এই ডায়েটে শস্যজাতীয় খাবার, দুধ এবং দুগ্ধজাত খাবার সম্পূর্ণরূপে বাদ দেবার কারণে কিছু শারীরিক অসুবিধা হতে পারে। তাই, একজন ডায়েটিশিয়ান বা ডাক্তারের সাথে কথা বলুন এবং প্রোটিন পরিপূরক গ্রহণ করুন যাতে আপনার শরীর প্রোটিন থেকে বঞ্চিত না হয়।

যদিও, নিরামিষাশীদের জন্য প্যালিয়ো ভেগান ডায়েট প্ল্যান রয়েছে, যেটি পিগ্যান ডায়েট (Pegan Diet) নামে পরিচিত। এই ডায়েটে উদ্ভিজ্জ প্রোটিন এবং ফ্যাট গ্রহণের ওপর জোর দেওয়া হয়। (7)

কর্ন টরটিলাস (Corn Tortillas) কি প্যালিও ডায়েটে খাওয়া যেতে পারে?

না, আপনি যখন প্যালিয়ো ডায়েটে রয়েছেন তখন কর্ন টরটিলাস (Corn Tortillas) খাওয়া এড়িয়ে চলুন, কারণ এটি দানা শস্যজাতীয় খাবারের মধ্যে পড়ে।

প্যালিয়ো ডায়েটে আমরা কী কী জলখাবার খেতে পারি?

প্যালিও ডায়েটে থাকা কালীন অবস্থায় স্ন্যাকস হিসেবে এইসব খাবারগুলি খেতে পারেন –

  •  শসা
  •  গাজর
  •  মটর এবং অন্যান্য শাকসবজির স্যালাড
  •  ফলের স্যালাড
  •  পেস্তা বাদাম

প্যালিয়ো ডায়েটে আমরা কী কী জিনিস পানীয় হিসেবে পান করতে পারি?

প্যালিও ডায়েটে থাকাকালীন অবস্থায় আপনি নিম্নলিখিত পানীয়গুলি পান করতে পারেন –

  •  প্রচুর পরিমাণে জল
  •  সবুজ চা যাকে বলে গ্রিন টি
  •  ফলের রস
  •  স্যুপ

Sources

Articles on StyleCraze are backed by verified information from peer-reviewed and academic research papers, reputed organizations, research institutions, and medical associations to ensure accuracy and relevance. Read our editorial policy to learn more.

  1. Beneficial effects of a Paleolithic diet on cardiovascular risk factors in type 2 diabetes: a randomized cross-over pilot study
     https://www.ncbi.nlm.nih.gov/pmc/articles/PMC2724493/
  2. Evaluation of biological and clinical potential of paleolithic diet
    https://pubmed.ncbi.nlm.nih.gov/22642064/
  3. Diet Review: Paleo Diet for Weight Loss
    https://www.hsph.harvard.edu/nutritionsource/healthy-weight/diet-reviews/paleo-diet/
  4. Paleolithic Diet
     https://www.ncbi.nlm.nih.gov/books/NBK482457/
  5. The Beneficial Effects of a Paleolithic Diet on Type 2 Diabetes and Other Risk Factors for Cardiovascular Disease
     https://www.ncbi.nlm.nih.gov/pmc/articles/PMC2787021/
  6. Popular Weight Loss Strategies: a Review of Four Weight Loss Techniques
     https://pubmed.ncbi.nlm.nih.gov/29124370/
  7. Palaeolithic Diet in Diabesity and Endocrinopathies – A Vegan’s Perspective
     https://www.ncbi.nlm.nih.gov/pmc/articles/PMC6785956/
Was this article helpful?
The following two tabs change content below.