সোশ্যাল মিডিয়া থেকে প্রেম তো করছেন ! তবে সম্পর্কটি বিশ্বাসযোগ্য কিনা যাচাই করেছেন কি ?

আধুনিক দিনের রোম্যান্সের কথা বলতে গেলে দীর্ঘ প্রেমের চিঠির কথা মনেই পড়ে না। এখন যুগ অনলাইন ডেটিং – এর।  অনলাইন ডেটিং অ্যাপ ছাড়াও সোশ্যাল মিডিয়াতেও আজকাল তরুণ তরুণী থেকে মধ্যবয়সীরা প্রেম করতে পটু।

সোশ্যাল মিডিয়া থেকে আপনাদের সম্পর্ক শুরু হয়েছে তো কি হয়েছে ?  ব্যাপারটিকে অন্য চোখে দেখার কোনো প্রশ্নই আসে না। এক্ষেত্রে খারাপ ভালো সব ধরনের অভিজ্ঞতার কথাই শোনা যায়। অনলাইনে ডেট করার প্রথম দিন থেকেই আপনার সঙ্গীকে গভীরভাবে বিশ্বাস করতে শুরু করবেন না বা পুরোপুরি অবিশ্বাসও করবেন না। আগে মানুষটিকে যতটা সম্ভব বোঝার চেষ্টা করুন।  খোলা মনেই মিশুন তার সাথে।

ভুলে গেলে চলবে না যে এখন অনেকেই নিজের জীবনসঙ্গী বেছে নিচ্ছেন সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে। তাই অনলাইন ডেটিং করার সময় মনে ভয় বা সংশয় রাখবেন না। আত্মবিশ্বাস রাখুন নিজের ওপর এবং আপনি ঠিক কিভাবে ব্যাপারটিকে নেবেন তা সম্পূর্ণ আপনার ওপর। সোশ্যাল মিডিয়া থেকে শুরু হওয়া সম্পর্কটি বিশ্বাসযোগ্য কিনা যাচাই করার জন্য রইলো কিছু পরামর্শ।

সোশ্যাল মিডিয়ায় প্রোফাইল

যে কোনও ধরণের সম্পর্কের ক্ষেত্রে স্বচ্ছতা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। আপনার সঙ্গীর যদি সোশ্যাল মিডিয়াতে তার প্রোফাইল সম্পূর্ণ থাকে, মানে নিজের সম্পর্কে সব তথ্য দেওয়া থাকে তাহলে বুঝবেন সে কোনো কিছু গোপন করছে না । তার প্রোফাইলের ফটোগুলো ভালো করে দেখবেন। যদি দেখেন ঠিক মতো ফোটো দেওয়া নেই বা ট্যাগ করাও কোনো ফটো নেই, তাহলে কোনো সমস্যা আছে। পারলে আপনার সঙ্গীর সাথে এই ব্যাপারে কথা বলুন। সে যদি এড়িয়ে যায়, তাহলে বুঝে নিন সে কোনো কিছু লুকোচ্ছে আপনার থেকে। এছাড়া একবার আপনাদের মধ্যে মিউচুয়াল ফ্রেন্ড কারা তা একবার অবশ্যই দেখে নেবেন, তাতে আপনার ধারণা হয়ে যাবে যে আপনি যার সাথে প্রেম করছেন সে কিরম ধরণের মানুষের সাথে মেশে।

দেখা করুন

istock

সোশ্যাল মিডিয়াতে হয়তো দিন কয়েকের আলাপেই আপনারা অনেকটা এগিয়ে গেছেন। কিন্তু দেখা করা হয়ে ওঠেনি। এরকম করবেন না। আলাপ হওয়ার এক মাসের মধ্যে দেখা করার প্রস্তাব দিন উল্টো দিকের মানুষটিকে। তাতে যদি দুজনে রাজি থাকেন তাহলে দেখা করার জায়গা ও সময় ঠিক করে নিন। আর যদি দেখেন আপনার সঙ্গীটি দেখা করতে চাইছে না বা এই প্রস্তাব দেওয়ার পর থেকে এড়িয়ে যাচ্ছেন আপানকে বা গোপনে দেখা করতে চাইছেন, তবে সময় নষ্ট না করে এই ব্যাপারটির থেকে বেরিয়ে আসুন।

কেমন পোস্ট বা স্টোরি শেয়ার করেন

Shutterstock

সোশ্যাল মিডিয়ায় প্রোফাইল দেখে একটা মানুষের সম্পর্কে কিছুটা ধারণা পাওয়া যায় । যেমন তিনি কেমন পোস্ট শেয়ার করছেন, স্টোরিতে কি দিচ্ছেন এইসব দেখে । তিনি যদি নিজের ছবি বা নিজের কাজ বা নিজের দৈনন্দিন জীবনের ছোটখাটো জিনিস প্রায়ই সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করছেন তাহলে ধরে নিন যে এই প্রোফাইলের মালিক তিনিই। এ বিষয়ে সন্দেহ করার কোনও কারণ নেই। তিনি কোন কোন পেজগুলো লাইক করেছেন সেগুলো চেক করলেও মানুষটি কেমন তার হালকা আঁচ পেতে পারেন।

শ্রদ্ধাশীল

সম্পর্কে বিশ্বাসের পাশাপাশি একে ওপরের প্রতি শ্রদ্ধাশীল হওয়া খুব জরুরি। সম্পর্কে থাকা দুটি মানুষের একে অপরকে সম্মান করাও তেমনই প্রয়োজন। যদি দেখেন আপনার সঙ্গী আপনাকে শ্রদ্ধা ও সম্মান করছেন, তাহলে বুঝবেন আপনার সঙ্গী চায় এই সম্পর্ককে টিকিয়ে রাখতে। তখন আপনারও উচিত এই সম্পর্কের ভিত যাতে মজবুত হয়, সেই দিকে নজর দেওয়া।

কথা শেয়ার করেন

Shutterstock

আলাপ পর্বের পর যদি দেখেন আপনার সঙ্গীটি তার জীবনের নানা কথা আপনার সাথে শেয়ার করছেন, তাহলে ভাববেন যে তিনি আপনাকে তার জীবনের অঙ্গ করে তুলতে চায়। তবে এর মানে এই নয় যে আপনাকে বা আপনার সঙ্গীকে নিজেদের গোপন সব কথাও শেয়ার করতে হবে, ধীরে ধীরে এগোন। একে অপরের কথা বোঝার সময় দিন।

টাকা নিয়ে প্রশ্ন করে না

যদি আপনার সঙ্গী আপনার প্রতি সত্যিই আগ্রহী হয় তবে আপনি কত টাকা রোজগার করেন বা কত টাকা খরচ করেন তা জানার কোনো চেষ্টাই সে করবে না । পরে ধীরে ধীরে সম্পর্ক গড়ালে একে অপরের সাথে এইসব নিয়ে আলোচনা করতেই পারেন।  আর মাত্র কয়েকদিনেই যদি দেখেন  নানা কারণে সে আপনার থেকে টাকা চাইছে, তাহলে সঙ্গে সঙ্গে সেই সম্পর্ক থেকে বেরিয়ে আসুন।

বাজে অজুহাত দেয় না

যদি আপনি আপনার সঙ্গীর সাথে দেখা করতে চাইছেন আর সে দেখাই করতে চাইছে না এবং ঠিক করে ফোনেও কথা বলছে না উল্টে বাজে অজুহাত দেখাচ্ছে আপনাকে, তাকে কখনই আর বিশ্বাস করবেন না।  যদি সে সত্যিই আপনার সাথে থাকতে চায়, তাহলে ব্যস্ততার মধ্যেও ঠিক সময় করে আপনার সাথে দেখা করবে বা কথা বলবে।

সব সম্পর্কেই প্রয়োজন সময়ের। আর সম্পর্কের প্রথম দিকে সেটির আরও বেশি দরকার। তার মানে এই নয় যে সম্পর্কের কিছুদিন পর থেকে একে অপরকে আর সময় না দিলেও চলে। আপনার উল্টো দিকের মানুষটি যদি বার বার নানা ভাবে আপনাকে জানার জানার ইচ্ছে প্রকাশ করে বা সময় দেয় , তবে সোশ্যাল মিডিয়াতে আলাপ হয়েছে বলে ভয় পেয়ে পিছিয়ে আসবেন না।

Was this article helpful?
The following two tabs change content below.